37.5 C
Chittagong
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪
spot_img

― Advertisement ―

spot_img
প্রচ্ছদচট্টগ্রামকর্ণফুলী রক্ষায় ১০১ সদস্যের পরিচালনা কমিটি গঠন

নদী তীরে প্রতিবাদী মঞ্চ

কর্ণফুলী রক্ষায় ১০১ সদস্যের পরিচালনা কমিটি গঠন

২০১৪ সালে স্ট্রেটেজিক মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী নাব্যতা রক্ষা ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবীতে কর্ণফুলীর তীরে স্থায়ী মঞ্চ স্থাপন করে টানা প্রতিবাদ কর্মসূচি পালনের উদ্দ্যেগ নেয়া হয়েছে।

এসব কর্মসূচি পরিচালনার জন্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষক ডাক্তার মাহফুজুর রহমানকে আহবায়ক এবং চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সভাপতি চৌধুরী ফরিদকে সদস্য সচিব ও উক্ত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আলীউর রহমানকে প্রধান সমন্বয়ক করে করে ১০১ সদস্য কমিটি গঠন করা হয়েছে।

গতকাল রবিবার বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ভবনে আয়োজিত এক সভায় উক্ত কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটি আগামী দুই দিনের মধ্যে কর্ণফুলী তীরে স্থায়ী মঞ্চ স্থাপন করে প্রতিদিন বিকাল তিনটা থেকে প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করবে।

কর্মসূচীতে চট্টগ্রাম ও দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের প্রতিবাদী বক্তব্যের পাশাপাশি আঞ্চলিক গান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

এই বিষয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার মাহফুজুর রহমান বলেন, দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। পরিবেশ সংগঠনগুলো ২০০৭ সাল থেকে কর্ণফুলীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও নদী খনন করে স্বাভাবিক নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে আন্দোলন করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও কর্ণফুলী রক্ষায় সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু বন্দর, জেলা প্রশাসন ও সিডিএ কোন সংস্থায় এইসবের তোয়াক্কা করছেন না। নিরুপায় হয়ে আমরা রাস্তায় মঞ্চ স্থাপন করতে বাধ্য হয়েছি।

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও ২০১৪ সালে স্ট্রেটেজিক মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী কর্ণফুলীর নাব্যতা ফিরিয়ে না আনা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।

সাংবাদিক চৌধুরী ফরিদ বলেন, দেশের অর্থনীতির সঞ্চালক মাতৃসম কর্ণফুলীর গুরুত্ব বুঝতে পারছে না বন্দর পরিচালনাকারীরা। তারা কার স্বার্থে দেশের বৃহত্তর স্বার্থ বিসর্জন দিচ্ছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। কর্ণফুলীর দখল মুক্ত করে মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী নাব্যতা ফিরিয়ে না আনা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।

প্রতিবাদী মঞ্চ ২০২৪ এর উপদেষ্টাদের মধ্যে আছেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক প্রশাসক খোরশেদুল আলম সুজন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, চুয়েটের সাবেক ভিসি অধ্যাপক মোজাম্মেল হক, স্থপতি আশিক ইমরান, চুয়েট পুরোকৌশল বিভাগের অধ্যাপক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার পালিত, প্রফেসর ড. মঞ্জুরুল কিবরিয়া।

ফিরিঙ্গি বাজার কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন, বেলা চট্টগ্রাম কার্যালয় সমন্বয়ক মনিরা পারভিন রুবা, যুগ্ম আহবায়ক সংগঠক মিঠুল দাশগুপ্ত, হাসান মারুম রুমি সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন, খেলাঘর চট্টগ্রামের মোরশেদুল হাসান, অধ্যাপক প্রদীপ কুমার দাশ, আমাদের নতুন সময়ের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান কামাল পারভেজ, সংগঠক হাসিনা আক্তার টুনু, বিপ্লবী তারেকশ্বর দস্তিদার স্মৃতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সি ন ভৌমিক, সংগঠক দিলরুবা খানম ছুটি, বনবিহারি চক্রবর্তী, রেজাউল করিম সিকদার ফাউন্ডেশনের জাহেদুল করিম শিকদার বাপ্পী, সাংবাদিক তুষার মুজিব, চট্টগ্রাম সাম্পান মাঝি কল্যান সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি এস এম পেয়ার আলী, যুগ্ম সভাপতি জাফর আহমদ, সংগঠক মোরশেদুল আলম, মো. রাশেদ, এম শাহাদাত নবী খোকা প্রমুখ।