26.9 C
Chittagong
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪
spot_img

― Advertisement ―

spot_img
প্রচ্ছদশিক্ষাঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৬১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৬১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

সুসংবাদ ডেস্ক:

পালিত হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৬১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। বিভাগটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে সাংবাদিকতা: বাংলাদেশ ও বাকি বিশ্ব’।

বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আবুল মনসুর আহাম্মদের সভাপতিত্বে বুধবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচার থিয়েটার ভবনে আর সি মজুমদার আর্টস অডিটোরিয়ামে একটি আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান। অতিথি বক্তা ছিলেন ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান ও যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির গণযোগাযোগ বিভাগের চেয়ারপার্সন ড. মো. আবু নাসের। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বিভাগটির অধ্যাপক ড. গীতি আরা নাসরীন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, সাংবাদিকতাকে শুধু আর্ট হিসেবে বিবেচনা না করে এটাকে বিজ্ঞান হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।

তাহলে সংবাদ মাধ্যমের বস্তুনিষ্ঠতা নিশ্চিত হবে এবং সাংবাদিকরা প্রাপ্ত তথ্যের সবগুলো দিক বিবেচনায় নিয়ে সংবাদ উপস্থাপনে সক্ষম হবেন।

উপাচার্য আরো বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাথে মানুষের সম্পৃক্ততা না থাকলে তথ্যকে ঝাঁপসা করে দেয়। তাই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাথে মানুষের সম্পৃক্ততা যত গভীর হবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব তত সফলতার দিকে এগিয়ে যাবে।

সভাপতির বক্তব্যে বিভাগটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ বিভাগের প্রাক্তন ও বর্তমান সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বিভাগের বয়স হয়েছে। বিভাগটি এগিয়ে যাচ্ছে নিজ গতিতে। বিভাগের ঐতিহ্যতে সমুন্নত রাখা দরকার। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব ও প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগে সাংবাদিকতায় নানা ধরনের চ্যালেঞ্জ আসবে। সাংবাদিকতা পেশায় যে যে পরিবর্তনগুলো হচ্ছে সেগুলোর সঙ্গেও খাপ খাইয়ে সামনের দিনগুলোতে বিভাগটির এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি

তিনি আরো বলেন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং সোশাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর সংখ্যা স্বাভাবিকভাবেই বৃদ্ধি পাচ্ছে তবে সে অনুপাতে তা ব্যবহারের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীদের আরও দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে।

১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে গত অর্ধশতকেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশের গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতার শিক্ষায় নেতৃত্বদান করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ। একবছর মেয়াদি সান্ধ্যকালীন ডিপ্লোমা কোর্সের মাধ্যমে যাত্রা শুরু হয়েছিল এই বিভাগের।