27.4 C
Chittagong
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪
spot_img

― Advertisement ―

spot_img
প্রচ্ছদচট্টগ্রামবেতন বৃদ্ধির আশ্বাসে কাজে যোগ দিল প্যাসিফিক জিন্স গ্রূপের শ্রমিকরা

বেতন বৃদ্ধির আশ্বাসে কাজে যোগ দিল প্যাসিফিক জিন্স গ্রূপের শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলের (সিইপিজেড) প্যাসিফিক জিন্স গ্রুপের কয়েকটি কারখানায় বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন করেছেন শ্রমিকরা। বেতন বৃদ্ধির আশ্বাস দেওয়ার পরে তারা আন্দোলন থামিয়ে ফের কাজে ফিরেছেন।

মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ আন্দোলন চলে টানা দেড় ঘণ্টা।
আন্দোলনরত শ্রমিকরা বলছেন, সরকার নির্ধারিত বেতনের চেয়ে ও অন্যান্য কারখানার তুলনায় তাদের বেতন কম বাড়ানো হয়েছে।

জানা গেছে, পোশাক কারখানার শ্রমিকদের জন্য সর্বনিম্ন ১২ হাজার ৫০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১৪ হাজার ৭৫০ টাকা বেতন নির্ধারণ করে নূন্যতম মজুরির খসড়া সুপারিশ প্রকাশ করেছে সরকার। যেখানে পাঁচটি গ্রেড রাখা হয়েছে।

আন্দোলনকারী শ্রমিকরা বলছেন, তাদের কারখানায় নতুন বেতন কাঠামো পাচ্ছেন নতুন যোগ দেওয়া শ্রমিকরা। কিন্তু পুরোনো শ্রমিকরা এই নতুন বেতন কাঠামোর আওতাভুক্ত হচ্ছেন না। ফলে পুরোনোদের বেতন এবং নতুন যোগদানকারীদের বেতনের পার্থক্য হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকা।

প্যাসিফিক গ্রুপের ইউনিভার্সেল জিন্স লিমিটেডে কর্মরত শ্রমিক মো. ফয়সাল বলেন, ‘আমরা যারা ৫-৭ বছর ধরে এখানে কাজ করছি তারা ৯ হাজার ১শ’ টাকা মজুরিতে কাজ শুরু করেছি। আমাদের ইনক্রিমেন্ট হতে হতে এখন বেতন ১৩ হাজার ৫শ’ বা ১৪ হাজার টাকা। কিন্তু সরকার সম্প্রতি বেতন বাড়িয়েছে পর আমাদের বেতন বাড়ানো হয়েছে মাত্র ১ হাজার টাকা। কিন্তু এখন নতুন কর্মচারী যারা যোগ দিচ্ছেন তাদের বেতন আমাদের বেতনের প্রায় সমান। তাহলে আমাদের ৫-৭ বছরের পরিশ্রমের মূল্য কি? এইজন্যই আমরা মূলত আজকের আন্দোলন করছি।’

তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের এক পর্যায়ে আমাদের এমডি স্যার আমাদের সামনে উপস্থিত হন। তিনি আমাদের সব দাবি-দাওয়া মেনে ৪ হাজার টাকা করে বেতন বাড়ানোর ঘোষণা দেন। যা ডিসেম্বরের বেতনের সাথে যোগ হয়ে আমরা এ মাসে হাতে পাবো। এখনো সবকিছু মৌখিকভাবেই। বেতন হাতে পেলে বুঝতে পারবো।’

চার হাজার টাকা করে বেতন বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করে প্যাসিফিক গ্রুপের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘ইয়াংওয়ানে সবার বেতন ৫ হাজার টাকা করে বৃদ্ধি করা হয়েছে। কিন্তু আমাদের এই কারখানায় পুরোনোদের বেতন বাড়ানো হয়েছিল সামান্য। যার ফলে নতুন ওয়ার্কারদের বেতন আর পুরোনোদের বেতন সমান হয়ে গিয়েছিল। তাই তারা আজ কারখানার প্রধান ফটক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করেন।’

‘এক পর্যায়ে এমডি স্যার এসে তাদেরকে ৪ হাজার টাকা করে বেতন বাড়ানোর আশ্বাস দিলে তারা কাজে ফেরেন। এই বাড়তি বেতন ডিসেম্বর মাসের বেতনের সাথে যোগ হবে।’ যোগ করেন তিনি।

তবে বেতন বেপজার এবং কাঠামো অনুযায়ী বাড়ানো হবে জনিয়ে প্যাসিফিক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ‘আজকে কোনো আন্দোলন করেননি শ্রমিকেরা। মূলত নতুন বেতন কাঠামো নিয়ে তাদের মধ্যে কিছু কনফিউশান (বিভ্রান্তি) ছিল। আমি গিয়ে তাদের সাথে কথা বলে সমাধান করেছি। নতুন কাঠামোতে বেতন পেলে স্বাভাবিকভাবেই শ্রমিকদের মধ্যে কনফিউশান থাকে। এখন শ্রমিকেরা কাজে ফিরেছেন। বর্তমানে সবকিছু স্বাভাবিক আছে।’
তিনি বলেন, ‘যে বেতন কাঠামো আছে সেই অনুযায়ী বেপজার সাথে কথা বলে বাড়াতে হবে। নিয়মের বাইরে গিয়ে কিছু করতে পারবো না।