26.9 C
Chittagong
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪
spot_img

― Advertisement ―

spot_img
প্রচ্ছদসারাদেশচলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ, ভিডিও দেখে ধরা ২

চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ, ভিডিও দেখে ধরা ২

সম্প্রতি কক্সবাজারের চকরিয়ায় চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন ট্রেনযাত্রী কমবেশী আহত হয়েছে।

গত ১৮ জুন (মঙ্গলবার) সকালে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারগামী ঈদ স্পেশাল ট্রেন চকরিয়া উপজেলার বরইতলী এলাকায় পৌঁছালে কয়েকজন যুবক পাথর নিক্ষেপ করেন। এই নিয়ে যাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়।

এদিকে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন।

পরে রেলওয়ে পুলিশের একটি টিম চারদিন ধরে চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নে অবস্থান নিয়ে খোঁজখবর নিয়ে তিনজনকে শনাক্ত করে।

এরপর শনিবার (২২ জুন) রাতে চকরিয়া থানা পুলিশের সহায়তায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানা পুলিশের একটি টিম চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের পহরচাদা এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। এখনও আরিফুল ইসলাম নামে একজন পলাতক আছেন।

গ্রেফতার দুইজন হলেন, পাথর নিক্ষেপকারী চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পহরচাদা এলাকার আবদুল হাকিমের ছেলে পেয়ার মোহাম্মদ পেয়ারু (২২) ও আবদুল্লাহ আল নোমান (২২)।

গতকাল বিকালে দু’জন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানার ওসি মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত পেয়ারুর বিরুদ্ধে চকরিয়া স্টেশন এলাকা থেকে রেলের স্লিপার চুরির ঘটনায় আগে থেকে মামলা রয়েছে।

ওসি মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা ঘটনাস্থল চকরিয়া গিয়ে প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হয়েছি, ‘পেয়ারু মূলত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করেছিল। নোমান তার সঙ্গে ছিল। পেয়ারু এক ব্যক্তির কাছে টাকা পেত। সেটা নিতেই সে রেললাইনে গিয়েছিল।

তার সঙ্গে নোমান ও আরিফও ছিল। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে পেয়ারু ওই ব্যক্তিকে পাথর মারেন। সে পাথর গিয়ে ট্রেনে লাগে।’

ওসি শহীদুল ইসলাম বলেন, চকরিয়ায় চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করার ঘটনায় গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।

রেলওয়ে থানার এসআই আবুল হোসেন বাদি হয়ে রুজু করা মামলায় গ্রেফতারকৃত দুইজনসহ তিনজন এজাহারনামীয় ও আরও ৩-৪ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত দুই আসামিকে গতকাল বিকালে আদালতের মাধ্যমে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তার আগে ঘটনার বিষয়ে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানায় প্রেস ব্রিফিং করে রেলওয়ে পুলিশ চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার হাছান চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রাম কক্সবাজার রেললাইন চালু হবার পর সম্প্রতি সময়ে চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চলন্ত ট্রেনকে উদ্দেশ্য করে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা বেশি ঘটছে।

পুলিশ সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পাথর নিক্ষেপ থামাতে। আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। প্রায়ই দেখা যায় ছোট বাচ্চা ও কিশোর বয়সী ছেলেরা মজা বা খেলার ছলে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করে। এক্ষেত্রে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের সচেতন না করলে এটি থামানো সম্ভব নয়।