26.9 C
Chittagong
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪
spot_img

― Advertisement ―

spot_img
প্রচ্ছদঅর্থ-বাণিজ্যদেশের পোশাকশিল্পে অশনিসংকেত

দেশের পোশাকশিল্পে অশনিসংকেত

অর্থনীতি ডেস্ক :

সাম্প্রতিক সময়ে ভয়ানক এক অশনিসংকেত তাড়া করছে দেশের প্রধান রপ্তানি খাত তৈরি পোশাকশিল্পকে।

একটি প্রতারক চক্র বাংলাদেশ থেকে রপ্তানিকৃত পণ্য সংশ্লিষ্ট বিদেশি ব্যাংকে টাকা জমা না হওয়া সত্ত্বেও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে পণ্য সরবরাহ করছে।

পোশাক তৈরি ও রপ্তানিকারক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দ জানান, প্রথমে ছোট ছোট রপ্তানি চালানের ক্ষেত্রে এই প্রতারণা লক্ষ করা গেলেও দিন দিন তা উদ্বেগজনক হারে বেড়ে চলেছে। এখনই প্রতারক চক্র কিংবা অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িতদের লাগাম টেনে না ধরলে গার্মেন্টস শিল্প খাত ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বে।

এর ফলে পোশাক রপ্তানিকারকরা যেমন ক্ষতির মুখে পড়বে, একইভাবে দেশ বিশাল অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা থেকে বঞ্চিত হবে।

বিজিএমইএ চট্টগ্রাম অফিসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ১০ বছরে ২৩টি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান তাদের বিদেশি ক্রেতার কাছে পণ্য পাঠিয়েও টাকা পায়নি। এতে অনেকেই ব্যাংকের দেনার দায়ে ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছে। আবার অনেকে ব্যাংক এবং সংশ্লিষ্ট বিদেশি ক্রেতার কাছে ধরনা দিয়ে চলেছেন। আবার কেউ কেউ বিরাট অঙ্কের অর্থ ব্যয় করে দেশি-বিদেশি মামলায় জড়িয়েছেন।

সাধারণত বিদেশি ক্রেতা বাংলাদেশের কোনো কারখানা মালিককে সরাসরি কিংবা বায়িং হাউজের মাধ্যমে নির্দিষ্ট পরিমাণ পোশাক তৈরির জন্য এলসি কিংবা চুক্তিপত্রের মাধ্যমে চুক্তিবদ্ধ হয়।

স্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান তার নিজস্ব ব্যাংকে তা প্রদর্শন করে ব্যাক-টু-ব্যাক এলসির মাধ্যমে দেশি বা বিদেশ থেকে কাপড়সহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য এক্সেসরিজ আমদানি করে থাকে।

কারখানার মালিকের স্থানীয় ব্যাংক ঐসব কাপড়সহ অন্যান্য পণ্যের খরচ বহন করে থাকে। পণ্য প্রস্তুত হওয়ার পর বিদেশি ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের নির্দিষ্ট নমিনি ফ্রেইট ফরোওয়ার্ডের মাধ্যমে নির্দিষ্ট জাহাজে পণ্য ভর্তি করে ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের বন্দরে পৌঁছানো হয়।

রপ্তানিকারক দেশীয় প্রতিষ্ঠান জাহাজে পণ্য ওঠার পর ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার থেকে প্রাপ্ত ডকুমেন্টসহ চালানের কপি তার স্থানীয় ব্যাংকে জমা দেয়। এই ব্যাংক বিদেশে ক্রেতার নির্দিষ্ট ব্যাংকে ডকুমেন্টসহ চালান পাঠিয়ে দেয়। বিদেশে নির্দিষ্ট বন্দরে পণ্য পৌঁছার পর ক্রেতা ব্যাংকে ডকুমেন্ট অনুযায়ী টাকা জমা দিয়ে বন্দর থেকে খালাস নিয়ে থাকে।

ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার ও শিপিং লাইন ব্যাংকের টাকা পরিশোধের কাগজপত্র দেখে তবেই ক্রেতার কাছে পণ্য হস্তান্তরের সাধারণ নিয়ম। কিন্তু দেখা যাচ্ছে ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার ও শিপিং লাইনের অসাধু লোকজনের যোগসাজশে বিদেশি ক্রেতা ব্যাংকের টাকা পরিশোধ না করে পণ্য খালাস নিয়ে যাচ্ছে।

দীর্ঘদিন ধরে কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই ধরনের অবৈধ পন্থায় ক্রেতা কর্তৃক পণ্য খালাস নেওয়ায় অনেকেই দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হয়েছে বলে জানা যায়।

সাম্প্রতিক একটি ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিজিএমইএ এই ধরনের প্রতারণা ও অবৈধ কাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের ব্যাপারে নড়েচড়ে বসেছেন। চট্টগ্রামের মেলো ফ্যাশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানের দুটি রপ্তানি চালানের মাধ্যমে পাঁচটি কনটেইনার তৈরি পোশাক আমেরিকায় ক্রেতার কাছে পাঠায়।

মেলো ফ্যাশন তার বিদেশি ক্রেতার নমিনি ফ্রেইট ফরোয়ার্ড ওয়াইদা ফ্রেইট ফরোয়ার্ডের স্থানীয় এজেন্ট রেজর ফ্রেইট সার্ভিস লিমিটেডের মাধ্যমে নির্দিষ্ট জাহাজে পণ্য ভর্তি করে। ৩ লাখ ৯৬ হাজার ৭৪৮ মার্কিন ডলারের ঐ রপ্তানি পণ্যের সব ডকুমেন্ট মেলো ফ্যাশন তার স্থানীয় ব্যাংকে জমা দেয়।

স্থানীয় ব্যাংক যথারীতি ক্রেতার নির্দিষ্ট ব্যাংকে পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু দেখা যায়, ওই বিদেশি ব্যাংকের ডকুমেন্ট অনুযায়ী অর্থ পরিশোধ না করা সত্ত্বেও ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার শিপিং লাইনের যোগসাজশে ক্রেতা বন্দর থেকে পণ্য ছাড় করিয়ে নেয়।

স্থানীয় রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান মেলো ফ্যাশনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে শিপিং লাইনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। অথচ রপ্তানি আইন অনুযায়ী কোনোভাবেই ব্যাংকে টাকা জমা না দেওয়া পর্যন্ত শিপিং লাইন কোনোভাবেই পণ্য হস্তান্তর করতে পারে না।

এদিকে মেলো ফ্যাশনের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার ও শিপিং লাইনের লাইসেন্সিং অথরিটি চট্টগ্রাম কাস্টমস হওয়ায় ইতিমধ্যে তাদের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে নিয়ে গত সপ্তাহে বৈঠক আয়োজন করে। বৈঠকে ফ্রেইট ফরোয়ার্ডিং প্রতিষ্ঠানকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মেলো ফ্যাশনের দাবিকৃত অর্থের ব্যাপারে সমাধানের সময় দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

মেলো ফ্যাশন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, বিজিএমইএ, ব্যাংকে অভিযোগ দিয়েছে। পুলিশের ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) বিষয়টি তদন্ত করছে।

বিজিএমইএ’র সিনিয়র সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ইত্তেফাককে বলেন, উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়া এই ধরনের প্রতারণা ও অবৈধ কর্মকাণ্ডের এখনই বন্ধের উদ্যোগ নিতে হবে। সরকারকে মূল ভূমিকা পালন করতে হবে।

বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোতে থাকা কমার্শিয়াল সেকশনের কর্মকর্তাদের ওই সব দেশের সংশ্লিষ্টদের নিকট অভিযোগসহ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংককে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে মিশনগুলোকে জানাতে হবে।

অথচ বিদেশি কোনো প্রতিষ্ঠান আমাদের দেশের প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো টাকা পেলে তাদের স্থানীয় দূতাবাসের মাধ্যমে চাপ দিয়ে থাকে। ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার শিপিং লাইন, বায়িং হাউস এবং ব্যাংককে ভূমিকা রাখতে হবে এবং দায়িত্ব নিতে হবে।

বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরোয়ারডার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি খায়রুল আলম সুজন বলেন, টাকা ছাড়া পণ্য খালাস নেওয়া আমরা মানতে চাই না।

তবে অর্ডার নেওয়ার ক্ষেত্রে মালিকদের সতর্ক থাকা উচিত। কারণ বায়িং হাউজের মাধ্যমে পাওয়া অর্ডারের ক্ষেত্রে এই ধরনের ঘটনা বেশি ঘটতে দেখা যায়। সূত্র-ইত্তেফাক।